Archive for জুলাই, 2011

জুলাই 29, 2011

 বাবা রামদেবকে সাধী করতে চান রাখি সাওয়ান্ত


উষ্ণ সব কর্মকাণ্ডের জন্য বলিউডে রাখি সাওয়ান্ত একটু অন্যভাবেই পরিচিত। মনোযোগ আকর্ষণে কাহিনী করতেও দ্বিধা নেই তাঁর।

উদ্ভট সব কর্মকাণ্ডের জন্য বলিউডে রাখি সাওয়ান্ত একটু অন্যভাবেই পরিচিত। মনোযোগ আকর্ষণে বিতর্কিত কিছু করতেও দ্বিধা নেই তাঁর। মূলত বলিউডি ছবিতে  পার্শ্বচরিত্রে তাঁর বিচরণ হলেও স্যাটেলাইট টিভিগুলোয় বিভিন্ন রিয়েলিটি শো ও অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় তিনি নিজের দক্ষতা প্রমাণ করেছেন।

একই সঙ্গে আইটেম গার্ল হিসেবেও তৈরি করেছেন মাল একটা পরিচিতি। তবে এবার তিনি আলোচনার জন্ম দিয়েছেন ‘যোগগুরু’ বাবা রামদেব এর  করার ইচ্ছা পোষণ।
সম্প্রতি তিনি সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন নিজের রিয়েলিটি শো ‘গজব দেশ কি গজব কাহানিয়া’র প্রচার উপলক্ষে। সেখানে তিনি সাংবাদিকদের সামনেই নাকি সরাসরি বাবা রামদেবের প্রেমে হাবুড়ুবু খাওয়ার  কথা স্বীকার করেছেন। সাংবাদিকেরা রাখির মুখে এ কথা শুনে যখন জিজ্ঞেস করেন, কবে বিয়ে করছেন? ঠিক তখনই রাখি বলেছেন, ‘বাবা রামদেব হ্যাঁ বললেই তাঁকে বিয়ে করব।’

read more »

ট্যাগ সমুহঃ , ,
জুলাই 25, 2011

বিয়ের আগে অনেক পাত্র দেখা হয়, সবার সঙ্গে বিয়ে হয় না: কাদের সিদ্দিকী


দেখা যাক , কাকে করতে পারি খালেদাকে না হাসিনাকে ।

জোট-মহাজোটে যাওয়া না যাওয়ার প্রশ্নে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরউত্তম বলেছেন, এটি হলো ছেলে বা মেয়ের বিয়ে দেয়ার মতো। বিয়ের আগে অনেক পাত্র বা পাত্রী দেখা হয়। কিন্তু সবার সঙ্গে বিয়ে হয় না। এ বিষয়ে এখনই  কিছু বলা যাবে না। এ নিয়ে এখনও পরিষ্কার কথা বলার সময় আসেনি। সময় হলে সব জানা যাবে।

আওয়ামী লীগের দুই নেতার সঙ্গে বৈঠক শেষে তিনি উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।   বৈঠকের জন্য তারা কাদের সিদ্দিকীর বাসায় পৌঁছলে তিনি গলায় গামছা দিয়ে তাদের বরণ করেন। বিকাল সাড়ে তিনটার পর শুরু হওয়া এই বৈঠক চলে সোয়া এক ঘণ্টা। বৈঠক শেষে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে কাদের সিদ্দিকী জানান, ‘প্রধানমন্ত্রী তাকে দাওয়াত দিয়েছেন। আমি এতে  বোকা মনে করছি এবং দাওয়াত কবুল করেছিছি। আমি আজকে যেতে পারলে খুশি হতামম।

তবে  যেহেতু দলের নেতৃত্বে রয়েছি, সবার সঙ্গে খাওয়া দাওয়া  করে প্রধানমন্ত্রী যেখানে চান সেখানে তার সঙ্গে আলোচনা করবো। তিনি বলেন, সংসদীয় গণতন্ত্রের অশুভ কাল চলছে।যত তাড়াটাড়ি বি করতে হবে।

গত ৩০ শে জুন সংবিধান সংশোধন করা হয়েছে। এতে বড় ধরনের পরিবর্তন হচ্ছে তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থা বাতিল। কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগ নীতিগতভাবে মনে করে, তত্ত্বাবধায়ক সরকার বাতিল জনগণ চায় না। তিনি বলেন, আমি নীতিগতভাবে মনে করি, এ মুহূর্তে  তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল দেশের মানুষ পছন্দ করেনি। আমাদের দুর্ভাগ্য আমরা কোন রাজনৈতিক দলের উপর আস্থা অর্জন করতে পারি নি। কেউ কাউকে বিশ্বাস করতে পারি না। দলের অধীনে নির্বাচন মেনে নিতে পারি নানা। শুধু আওয়ামী লীগকে দোষ দেব নানা। এটা রাজনীতিবিদদের অব্যর্থতা।

জুলাই 21, 2011

নাসিমকে প্রধানমন্ত্রীর তিরস্কার


এখন শেখ হাসিনা কে ও খারাপ মনে হচ্ছে ।।

লক্ষীপুরের ফাসির আসামির দণ্ডাদেশ মওকুফ করার সিদ্ধান্তের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করায় সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. নাসিমকে তিরস্কার করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ফাসির আসামির দণ্ডাদেশ মওকুফ করায় সরকারের ভাবমুর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে- মো. নাসিমের এ মন্তব্যের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপির মিথ্যা মামলা বর্তমান সরকার কেন জায়েজ করবে।আমাদের সব মামলা সত্য আমরা মিথ্যা বলি না। তবে রায়টা আমাদের বিপক্কে গেছে তা ই । এ সময় মো. নাসিম বিব্রত হন। এক পর্যায়ে তিনি তার বক্তব্য শেষ না করেই তার পুটো ফেটে যাই । বুধবার সন্ধ্যায় গণভবনে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহি কমিটির বৈঠকে এসব কথা হয়।
এ সময় প্রধানমন্ত্রী মো. নাসিমের উদ্দেশ্যে বলেন, নাসিম আপনি বেশী কাহিনী করবেননা  । আপনি আপনার নির্বাচনী এলাকায় আওয়ামী লীগের কাউকে রাজনীতি করতে দেন না। আপনার কারণে সেখানে আওয়ামী লীগ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। আপনি দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে বিএনপি-জামায়াতের রাজাকার মন্ত্রী ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকুর স্ত্রীকে এমপি বানিয়েছেন।  বেশী কাহিনী করলে মারবো এখানে লাথি পড়বে নাখে ।
মো. নাসিম তার বক্তৃতার শুরুতেই অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, এলজিআরডি মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, বাণিজ্যমন্ত্রী ফারুক খান, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এডভোকেট সাহারা খাতুনের কিছু সিদ্ধান্তের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করেন। মো. নাসিম বলেন, অর্থমন্ত্রী শক্ত কথা বলেন। অথচ শেয়ার ব্যবসাইদের নরদমাই পেলে দিয়েছেন । এর ফলে সরকারের  নাখে লাথি পড়বে   পড়বেই। অন্যদিকে, দলের সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পরেও এলজিআরডি মন্ত্রীর সঙ্গে নেতাকর্মীদের সমন্বয় হচ্ছে না। এ অবস্থায় সারা দেশে লীগের করমীদের এক … একটু  করতে হবে আর কি ?।
সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মো. নাসিম বাণিজ্যমন্ত্রীর ভূমিকা প্রসঙ্গে বলেন, ব্যবসায়ীদের সঙ্গে তোসামোদী করলে হবে না। টিসিবিকে শক্তিশালী করতে হবে। রোজার আগে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে। বর্তমান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে পরামর্শ দিয়ে নাসিম বলেন, পুলিশ বিভাগে নতুন কোনো কোহিনুরের জন্ম দেয়া যাবে না। তিনি কিছু কিছু ক্ষেত্রে পুলিশ বাড়াবাড়ি করছে বলেও মন্তব্য করেন

জুলাই 20, 2011

যেমনে খুশি চলা যায়, যা খুশী করা যায়, খুন করলে চারাও পায়।


রাষ্ট্রপতি খুনিদের মালা পরাচ্ছেন ।

দৈনিক উষ্ণআলো | |—–
লক্ষ্মীপুর পৌরসভার মেয়র ও আওয়ামী লীগের বিতর্কিত নেতা আবু তাহেরের ছেলে এ এইচ এম বিপ্লবের ফাঁসির দণ্ডাদেশ মওকুফ করেছেন রাষ্ট্রপতি।

লক্ষ্মীপুর জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও আইনজীবী নুরুল ইসলাম হত্যা মামলার রায়ে ২০০৩ সালে আদালত বিপ্লবের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন। আরও দুটি হত্যা মামলায় বিপ্লবের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়েছে। তিনি লক্ষ্মীপুর জেলা কারাগারে আটক আছেন।
দীর্ঘ ১০ বছরের বেশি সময় পলাতক থেকে বিপ্লব গত ৪ এপ্রিল আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। এরপর তাঁর বাবা আবু তাহের ছেলে বিপ্লবের প্রাণভিক্ষা চেয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে আবেদন করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান বিপ্লবের সাজা মওকুফ করেন।

গত ১৪ জুলাই এই সাজা মওকুফের আদেশ কার্যকর হয়।
বিগত আওয়ামী লীগ সরকার আমলে ২০০০ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর রাতে লক্ষ্মীপুর শহরের বাসা থেকে নুরুল ইসলামকে অপহরণের পর হত্যা করা হয়। এটি তখন দেশজুড়ে আলোচিত ঘটনা ছিল। তখন সেখানকার পৌর চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহেরও সন্ত্রাসের ‘গডফাদার’ হিসেবে ব্যাপক আলোচনায় ছিলেন।

জুলাই 19, 2011

পিতা মাতার সাথে সদাচরণ করা অতিউত্তম কাজ —